পুষ্টি সংক্রান্ত তথ্য

পুষ্টি সংক্রান্ত তথ্য

পুষ্টি সংক্রান্ত তথ্য
দেহ পরিপোষক খাদ্য ➠ কার্বোহাইড্রেট (শর্করা), প্রোটিন (আমিষ), লিপিড (স্নেহপদার্থ)
দেহ সংরক্ষক খাদ্য ➠ ভিটামিন, খনিজ পদার্থ
ফ্যাট জাতীয় খাদ্যের উৎস ➠ তেল, ঘি, মাখন, বাদাম, নারকেল ইত্যাদি
কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাদ্যের উৎস ➠ চাল, গম, চিনি, আলু, যব ইত্যাদি
প্রোটিন জাতীয় খাদ্যের উৎস ➠ মাছ, মাংস, ডিম, ডাল ইত্যাদি
ল্যাকটোজ সমৃদ্ধ খাদ্যবস্তু ➠ দুধ
কার্বোহাইড্রেট ভঙ্গক উৎসেচক ➠ টায়ালিন, মলটেজ, ল্যাকটেজ, সুক্রেজ, অ্যামাইলেজ
প্রোটিন ভঙ্গক উৎসেচক ➠ ট্রিপসিন, পেপসিন, কাইমোট্রিপসিন
লিপিড ভঙ্গক উৎসেচক ➠ লাইপেজ
শর্করা ও লিপিডের মূল উপাদান ➠ কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন
প্রোটিনের মূল উপাদান ➠ কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন ও নাইট্রোজেন
শর্কারা উদ্ভিদদেহে ও প্রাণীদেহে সঞ্চিত থাকে ➠ যথাক্রমে স্টর্চ ও গ্লাইকোজেন হিসাবে
শর্করার সরল রূপ ➠ গ্লুকোজ
প্রোটিনের সরল রূপ ➠ অ্যামিনো অ্যাসিড
লিপিডের সরল রূপ ➠ ফ্যাটি অ্যাসিড বা গ্লিসারল
জলে দ্রবণীয় ভিটামিন ➠ ভিটামিন C এবং B কমপ্লেক্স
স্নেহপদার্থে দ্রবণীয় ভিটামিন ➠ ভিটামিন A, D, E, K
প্রোভিটামিন ➠ ক্যারোটিন (ভিটামিন A-এর)
সিউডোভিটামিন ➠ কোলিন
স্বভোজী পুষ্টি দেখা যায় ➠ সবুজ উদ্ভিদে
মৃতজীবী পুষ্টি দেখা যায় ➠ ছত্রাকে
মিথোজীবী পুষ্টি দেখা যায় ➠ রাইজোবিয়াম, লাইকেন, গজপিপুল
আংশিক পরজীবী পুষ্টি দেখা যায় ➠ চন্দনে
সম্পূর্ণ পরজীবী পুষ্টি দেখা যায় ➠ স্বর্ণলতা
পতঙ্গভুক উদ্ভিদ ➠ কলশপত্রী, সূর্যশিশির
লালারসের উৎসেচক ➠ টায়ালিন, অ্যামাইলেজ
পাচক রসের উৎসেচক ➠ পেপসিন, লাইপেজ
অগ্ন্যাশয় রসের উৎসেচক ➠ মলটেজ, ট্রিপসিন
আন্ত্রিক রসের উৎসেচক ➠ সুক্রেজ, ল্যাকটেজ
পিত্তরস ➠ উৎসেচকহীন
মিশ্র গ্রন্থি ➠ অগ্ন্যাশয়
পিত্তে থাকা পিত্তরঞ্জক ➠ বিলিরুবিন ও বিলিভারডিন
খাদ্য পাচিত হয় ➠ মুখবিবর, পাকস্থলী ও ক্ষুদ্রান্ত্রে
পাচিত খাদ্য শোষিত হয় ➠ ক্ষুদ্রান্ত্রের জেজুনাম ও ইলিয়াম অংশে
HCL নিঃসৃত হয় ➠ পাকস্থলীর অক্সিনটিক কোশ থেকে
শরীরে ইউরিয়া উৎপন্ন হয় ➠ যকৃতে
আয়োডিনের অভাবে প্রাণীদেহের রোগ ➠ গয়টার বা গলগণ্ড
লোহার অভাবে প্রাণীদেহের রোগ ➠ রক্তাল্পতা
প্রাণীদেহে পটাশিয়ামের অভাবজনিত লক্ষন ➠ স্নায়ুদৌর্বল্য, অনিয়মিত হৃৎস্পন্দন
কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ভিটামিন
✪ ভিটামিন – A
• রাসায়নিক নাম – রেটিনল
• উৎস : বাঁধাকপি, পাকা আম, টম্যাটো, গাজর, কড ও হাঙর মাছের যকৃত নিঃসৃত তেল
• অভাবজনিত রোগ : রাতকানা, সেরোসিস
✪ ভিটামিন – B1
• রাসায়নিক নাম – থিয়ামিন
• উৎস : ডিমের কুসুম, ঢেঁকিছাটা চাল, বাদাম, ডাল, ফুলকপি, বীট, লেটুস শাক
• অভাবজনিত রোগ : বেরিবেরি, ক্ষুধামান্দ্য, স্নায়ুদৌর্বল্য
✪ ভিটামিন – B2
• রাসায়নিক নাম – রাইবোফ্লাভিন
• উৎস : যকৃত, বৃক্ক, ডিমের সাদা অংশ, ইস্ট, নাটে শাক, অঙ্কুরিত গম, কলমি শাক, পালং শাক
• অভাবজনিত রোগ : চেইলোসিস; স্নায়ুতন্ত্র, চক্ষু, ত্বক প্রভৃতির ক্ষয়, গ্লসাইটিস
✪ ভিটামিন – B3
• রাসায়নিক নাম – নিয়ানিস
• উৎস : ডিমের কুসুম, দানাশস্যের খোসা, মটর, বিন
• অভাবজনিত রোগ : পেলেগ্রা
✪ ভিটামিন – B5
• রাসায়নিক নাম – প্যান্টোথ্যানিক অ্যাসিড
• উৎস : যকৃত, রাঙা আলু, মটর, আখের গুড়
• অভাবজনিত রোগ : ডার্মাটাইটিস, অনিদ্রা, স্নায়ুদৌর্বল্য
✪ ভিটামিন – B6
• রাসায়নিক নাম – পাইরিডক্সিন
• উৎস : দুধ, ডিম, মাছ, মাংস, অঙ্কুরিত শস্য
• অভাবজনিত রোগ : ডার্মাটাইটিস, অ্যানিমিয়া
✪ ভিটামিন – B7
• রাসায়নিক নাম – বায়োটিন
• উৎস : ঢেঁকিছাটা চাল, লাল আটা, ভাতের ফ্যান, দুধ, ডিম
• অভাবজনিত রোগ : বৃদ্ধি ব্যাহত, চর্মরোগ, চুলপড়া
✪ ভিটামিন – B9
• রাসায়নিক নাম – ফোলিক অ্যাসিড
• উৎস : ঢেঁকিছাটা চাল, লাল আটা, ভাতের ফ্যান, দুধ, ডিম
• অভাবজনিত রোগ : বৃদ্ধি ব্যাহত, চর্মরোগ, চুলপড়া
✪ ভিটামিন – B12
• রাসায়নিক নাম – সায়ানোকোবালামিন
• উৎস : মাছ, মাংস, দুধ, ডিম
• অভাবজনিত রোগ : বৃদ্ধি ব্যাহত, পারনিসিয়াস অ্যানিমিয়া
✪ ভিটামিন – C
• রাসায়নিক নাম – অ্যাসকরবিক অ্যাসিড
• উৎস : আমলকী, লেবু, পেয়ারা, মাতৃদুগ্ধ
• অভাবজনিত রোগ : স্কার্ভি
✪ ভিটামিন – D
• রাসায়নিক নাম – আর্গোক্যালসিফেরল ও কোকোক্যালসিফেরল
• উৎস : সূর্য কিরণ, উদ্ভিজ্জ তেল, কড, হ্যালিবাট প্রভৃতি মাছের যকৃতের তেল
• অভাবজনিত রোগ : রিকেট
✪ ভিটামিন – E
• রাসায়নিক নাম – টোকোফেরল
• উৎস : লেটুস শাক, মটরশুঁটি, মাছ, ডিম, মাংস
• অভাবজনিত রোগ : বন্ধ্যাত্ব
✪ ভিটামিন – K
• রাসায়নিক নাম – ফাইলোকুইনোন
• উৎস : পালং শাক, টম্যাটো, অঙ্কুরিত গম, বাঁধাকপি, সয়াবিন, দুধ মাখন, যকৃত, বৃক্ক
• অভাবজনিত রোগ : রক্তক্ষরন বা হেমারেজ

তথ্যসূত্র : ইন্টারনেট